1. andolonerbazar@gmail.com : AndolonerBazar :
শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৩৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
তেল পাম্প থেকে তেল সরবরাহ করার সময় অগ্নিকান্ডে  নিহত-২, আহত ৩ কুষ্টিয়ায় আলহাজ্ব ওয়ালিউল বারী চৌধুরী কল্যাণ ট্রাষ্টের উদ্যোগে প্রতি শুক্রবার ২শ’ দুস্থ্যের মাঝে দুপুরের খাবার বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন তথ্য গোপন করে রশিদ গ্রুপের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ ৭১’র ১৩ আগস্ট কুষ্টিয়ার মিরপুরের শুকচা বাজিতপুরের সম্মুখ যুদ্ধ আলমডাঙ্গা পৌর শহরে ফুটপাত দখল করে ক্লিনিক ও বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা দোকান বসিয়ে ব্যবসা করায় জনদুর্ভোগ দৌলতপুরে বৈরী আবহাওয়ার পরও চাষীদের মুখে হাসি ফুটিয়েছে  সোনালী আঁশ বনভোজন : হরিপুর মোহনা যেনো কুষ্টিয়ার কক্সবাজার ঝিনাইদহ জেলা বিএনপি’র আয়োজনে প্রতিবাদ সমাবেশ ঝিনাইদহে মামলা-হামলা ও হয়রানির প্রতিবাদে গ্রামবাসীরা রাস্তায় ঝিনাইদহে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে বিতর্কিত করা ছোট অপরাধ না ঃ হাইকোর্ট

  • সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ৮ জুন, ২০২১
  • ১১০ মোট ভিউ

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে বিতর্কিত করা ছোট অপরাধ না, এটাকে নমনীয় দৃষ্টিতে দেখার কোনো সুযোগ নেই বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নথি জালিয়াতির মামলায় এক আসামির জামিন শুনানিতে আসামির আইনজীবীকে উদ্দেশ্য করে গতকাল মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চ এমন মন্তব্য করেন। শুনানির একপর্যায়ে আদালত বলেন, প্রধানমন্ত্রীর অফিসকে কেন বিতর্কিত করেন? রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ এই অফিসকে কেন প্রশ্নের সম্মুখীন করেন? আপনার কাছে এই ধরনের অপরাধ ছোট মনে হতে পারে কিন্তু এটাকে নমনীয় দৃষ্টিতে দেখার সুযোগ নেই। নথি জালিয়াতির মামলায় হাইকোর্টে জামিন চেয়ে আবেদন করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বরখাস্তকৃত কর্মচারী ফাতেমা খাতুন। তার পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোমতাজ উদ্দিন আহমেদ মেহেদী। আসামির জামিন প্রার্থনা করে শুনানিতে আইনজীবী বলেন, এক বছরের বেশি সময় ধরে তিনি জেলে আছেন। উনি অসুস্থ। আমার মক্কেল মামলার এজাহারের তিন নম্বর আসামি। ১৬৪ ধারায় তার জবানবন্দি রয়েছে। গত বছরের ১০ মে থেকে তিনি কারাগারে আছেন। এ সময় আদালত বলেন, জেলখানায় গেলেই কি সবাই অসুস্থ হয়ে যায়? আমাদের কিছুই করার নেই। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে বিতর্কিত কেন করেন? জামিন দেয়া হবে না। শুধু রুল নিতে পারেন। পরে আইনজীবী রুল নিতে চাইলে হাইকোর্ট আসামির জামিন কেন দেয়া হবে না সেই প্রশ্নে রুল জারি করেন। এদিকে চলতি বছরের ১৮ জানুয়ারি এ মামলায় দুর্নীতি দমন কমিশনকে তদন্তের নির্দেশ দেন হাইকোর্টের বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ। মামলার আরেক আসামি নাজিম উদ্দিনের জামিন আবেদনের শুনানি নিয়ে দুদককে তদন্তের নির্দেশ দিয়ে আবেদনটি খারিজ করে দেন ওই আদালত। মামলার বিবরণে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নথি বের করে জালিয়াতির মাধ্যমে তার (প্রধানমন্ত্রীর) সিদ্ধান্ত বদলে দেয়ার অভিযোগে মামলা করা হয়। ওই মামলায় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা তরিকুল ইসলাম মমিন, কর্মচারী ফাতেমা খাতুনসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। দাখিল করা অভিযোগপত্রের বাকি আসামিরা হলেন- নাজিম উদ্দীন, রুবেল, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ফরহাদ হোসেন এবং বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস-এর সাবেক কোষাধ্যক্ষ অবসরপ্রাপ্ত এয়ার কমোডর এম আবদুস সালাম আজাদ। অভিযোগপত্রে বলা হয়, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে কোষাধ্যক্ষ পদে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এম এনামুল হক, বুয়েটের প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক মো. আবদুর রউফ এবং বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস-এর সাবেক কোষাধ্যক্ষ অবসরপ্রাপ্ত এয়ার কমোডর এম আবদুস সালাম আজাদের নাম প্রস্তাব করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে একটি সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়। এই নথি প্রধানমন্ত্রীর সামনে উপস্থাপন করার পর তিনি অধ্যাপক ড. এম এনামুল হকের নামের পাশে টিক চিহ্ন দেন। পরে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য নথিটি রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানোর প্রস্তুতি পর্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অফিস সহকারী ফাতেমার কাছে এলে তিনি এম আবদুস সালাম আজাদ অনুমোদন পাননি−গোপনীয় এ তথ্য ফোনে ছাত্রলীগ নেতা তরিকুলকে জানিয়ে দেন। এরপরেই তরিকুলের পরিকল্পনা অনুযায়ী, গত ১ মার্চ নথিটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে কৌশলে বের করে ৪ নম্বর গেটের সামনে আসামি ফরহাদের হাতে তুলে দেন ফাতেমা। এ কাজের জন্য ফাতেমাকে আসামিরা ১০ হাজার করে বিকাশে মোট ২০ হাজার টাকা দেন। অভিযোগপত্রে আরও বলা হয়, এরপরেই সেই নথিতে আসামিরা পরস্পরের যোগসাজশে ড. এম এনামুল হকের নামের পাশে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া টিক চিহ্নটি ‘টেম্পারিং করে সেখানে ক্রস চিহ্ন দেয়। একইভাবে অধ্যাপক মো. আবদুর রউফের নামের পাশেও ক্রস চিহ্ন দিয়ে এয়ার কমোডর এম আবদুস সালাম আজাদের নামের পাশে টিক চিহ্ন দেয়। পরে আসামিরা ৩ মার্চ তারিখে নথিটি রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য পাঠায়। এসব ঘটনা নিয়ে ভাটারা এলাকার সানফ্লাওয়ার রেস্টুরেন্টে আসামি নাজিমের সঙ্গে তরিকুল ও ফরহাদ সলাপরামর্শ করেন। তবে তাদের জালিয়াতিটি ধরা পড়ে যায়। জালিয়াতির এই ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক-৭ মোহাম্মদ রফিকুল আলম বাদী হয়ে গত বছরের ৫ মে তিনজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
© All rights reserved ©2021  Daily Andoloner Bazar
Theme Customized By Uttoron Host
You cannot copy content of this page