1. admin@andolonerbazar.com : : admin admin
  2. andolonerbazar@gmail.com : AndolonerBazar :
শিরোনাম :
জিম্বাবুয়ে সিরিজের শুরুতে থাকবেন না সাকিব দক্ষিণ আফ্রিকায় ম্যান্ডেলা কাপে জিনাতের স্বর্ণ জয় বাংলাদেশের স্পিন বিভাগে পার্থক্য তৈরি করতে চান মুশতাক মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনার মধ্যে ইরানের রাষ্ট্রপতির পাকিস্তান সফর দেশের ইতিহাসে রেকর্ড ১৬ হাজার ২৩৩ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রথম ধাপের উপজেলা ভোট : ৭ চেয়ারম্যান ও ৯ ভাইস চেয়ারম্যান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আমিরের বৈঠক: কাতারের কাছে দীর্ঘমেয়াদি জ্বালানি সহায়তা চায় বাংলাদেশ ফের তাপমাত্রা বাড়ার আভাস দেশি-বিদেশি চক্র নির্বাচিত সরকারকে হটানোর চক্রান্ত করছে : কাদের প্রধানমন্ত্রী ও কাতার আমিরের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক, ১০ চুক্তি-সমঝোতা স্মারক সই

বছরের শেষ নাগাদ চালু হবে আড়াই হাজার মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন চার বিদ্যুৎকেন্দ্র

  • সর্বশেষ আপডেট : বুধবার, ১৪ জুন, ২০২৩

 

 

 

ঢাকা অফিস ॥ চলতি বছরের শেষ নাগাদ চালু হবে প্রায় আড়াই হাজার মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন চারটি স্থায়ী বিদ্যুৎকেন্দ্র। এর সবগুলোই গ্যাস চালিত। খুলনা ও নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে কেন্দ্রগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। পিডিবি এবং বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সম্প্রতি বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদও জানিয়েছিলেন, চলতি বছর বড় বড় কয়েকটি বেইজ লোড বিদ্যুৎকেন্দ্র উৎপাদনে আসছে।  সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সিদ্ধিরগঞ্জ ইউনিক পাওয়ারের ৬০০ মেগাওয়াটের পাওয়ার প্ল্যান্ট নির্মাণকাজ শেষের পথে। কেন্দ্রটির সব যন্ত্রাংশ ইতোমধ্যে সংযোজন করা হয়েছে। এখন কেন্দ্রটির শেষ মুহূর্তের কাজ চলছে। পিডিবি সূত্র জানায়, এর বাইরে মেঘনাঘাটেই দুটি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের কাজ চলছে। এরমধ্যে ভারতের রিলায়েন্স গ্রুপের একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র রয়েছে। কেন্দ্রটি ৭১৮ মেগাওয়াট ক্ষমতার। এছাড়া দেশীয় কোম্পানি সামিট পাওয়ার ৫৮৩ মেগাওয়াটের আরও একটি কেন্দ্র নির্মাণ করছে। অন্যদিকে খুলনায় নর্থওয়েস্ট পাওয়ার কোম্পানি ৮০০ মেগাওয়াটের একটি কেন্দ্র নির্মাণ করছে। সবগুলো কেন্দ্রই গ্যাসচালিত। কেন্দ্রগুলো চালু করা সম্ভব হলে তেলের ওপর সরকারের নির্ভরতা কমবে। চলতি বছর সরকারের ডিজেলচালিত কেন্দ্রগুলো বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে বলে জানান বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্র বলছে, ভবিষ্যতের প্রয়োজনীয়তা মাথায় রেখে কেন্দ্রগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। সরকার ১০০টি ইকোনমিক জোন নির্মাণ করছে। এসব ইকোনমিক জোনে বিদ্যুতের চাহিদা রয়েছে অনেক। এসব ইকোনমিক জোনে বিপুল পরিমাণ মানুষের কর্মসংস্থান হবে বলে আশা করছে সরকার। সূত্র বলছে, সবগুলো বিদ্যুৎকেন্দ্রই নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তিন থেকে চার বছর আগে। কেন্দ্রগুলোর মধ্যে দুটির গত মার্চেই উৎপাদনে আসার সময়সীমা নির্ধারিত ছিল। তবে উৎপাদনে আসার সময় কিছু দিন পিছিয়ে গেছে। বিদ্যুৎ বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, পিছিয়ে গেলেও বছরের শেষ নাগাদ সবগুলো কেন্দ্র উৎপাদনে চলে আসবে বলে আমরা আশা করছি।  তিনি বলেন, নানা সংকটের কারণে কেন্দ্রগুলো উৎপাদনে আসতে দেরি হয়েছে। বড় বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে কিছুটা বেশি সময় লাগাটা অস্বাভাবিক নয়। এখন দেশে ১৪৯টি বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু রয়েছে। চারটি বিদ্যুৎকেন্দ্র দীর্ঘমেয়াদি সংস্কারের আওতায় রয়েছে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

আরো খবর
© All rights reserved ©2021  Daily Andoloner Bazar
Site Customized By NewsTech.Com