1. andolonerbazar@gmail.com : AndolonerBazar :
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:৫৯ অপরাহ্ন

বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে সামগ্রীক অর্থনৈতিক স্থীতিশীলতা দেশে বিদেশে প্রশংসার দাবী রাখে

  • সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ, ২০২২
  • ৪৫ মোট ভিউ

 

নিজ সংবাদ ॥ গতকাল মঙ্গলবার ২৯ শে মার্চ সকাল ১০টায় কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ: বঙ্গবন্ধু হতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক মৃনাল কান্তি দে, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ফরহাদ হোসেন খাঁন, কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও চেম্বারের সভাপতি হাজী রবিউল ইসলাম, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা, কুষ্টিয়া জজ কোর্টের বিজ্ঞ জিপি ও কুষ্টিয়া সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামান মাসুম, কুষ্টিয়া এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ জাহিদুর রহমান মন্ডল, সাবেক জেলা মুক্তিযোদ্ধার ডেপুটি কমান্ডার হাজী রফিকুল ইসলাম টুকু, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ তবিবুর রহমান এবং জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপপরিচালক সুশান্ত কুমার প্রামানিক প্রমূখ ।

সভার শুরুতে বঙ্গবন্ধু হতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের আমলে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড, উদ্যোগ এবং অর্জনের উপর  প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন ড. আমানুর আমান ।

আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক, শিক্ষা ও আইসিটি) মোছাঃ শারমিন আখতার, সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট, ট্রেজারী ও স্ট্যাম্প শাখা ও  নেজারত ডেপুটি কালেক্টর মোঃ সবুজ হাসান, সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট সিফাতুন নাহার ও কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাধন কুমার বিশ্বাসসহ জেলা প্রশাসন কার্যালয় ও বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ ।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা বলেন, কোন লীডারশীপ, কোন রাষ্ট্র প্রধান যদি জাতির উপরে ভিশন (লক্ষ) ছেড়ে না দেয় তাহলে লক্ষে পৌঁছানো সম্ভব না। জাতির জনক স্বল্পোন্নত বাংলাদেশ নিয়ে যাত্রা শুরু করেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ভিশনই তার কন্যা শেখ হাসিনা ১৯৯৬ থেকে ২০০১ এবং ২০০৮ সাল থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত সেই লক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন তার জীবন বাজি রেখে। যার ফলেই বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে। স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক মৃনাল কান্তি দে ড. আমানুর আমান’কে সুন্দর ভাবে প্রতিবেদন উপস্থাপন করার জন্য ধন্যবাদ জানান । তিনি বলেন, বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশে পরিনত করার স্বপ্ন দেখেছিলেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান । ১৯৭৩ থেকে ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা তার হাত দিয়েই শুরু হয়েছিলো। ১৯৭৫ সালে জাতির পিতা বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত অর্ন্তভুক্ত করেছিলেন। জাতির পিতা যে বীজ বপন করেছিলেন তার পূর্ণাঙ্গ বাস্তবিক রূপ দিয়েছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী। কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাঃ এর সভাপতি হাজী রবিউল ইসলাম বলেন, উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ জন্য সকল শর্ত আমাদের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় নির্ধারিত সময়ের আগেই অর্জন করেছি। বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, সেই স্বপ্ন তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষ নেতৃত্বের কারনেই আজ পূরণ হয়েছে ।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ফরহাদ হোসেন খাঁন বলেন, পৃথিবীতে  বর্তমানে ৪৭টি দেশ এলডিসি (লিস্ট ডেভেলোপমেন্ট কান্ট্রি) বা উন্নয়নশীল দেশের তালিকাভূক্ত। এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে উত্তরণের জন্য মাথাপিছু আয়, মানব সম্পদ সূচক এবং অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা সূচক এ তিনটি সূচকের যে কোন দুটি অর্জনের শর্ত থাকলেও বাংলাদেশ তিনটি সূচকের মানদন্ডেই উন্নীত হয়েছে।

সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেন, শুধু স্বপ্ন দেখলে হবে না, সেটা বাস্তবায়ন করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় আসার পরে বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশে পরিনত করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ভিশন ২০২১ অর্জনের লক্ষে ২০১০ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত একটি প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ছিলো এবং প্রেক্ষিত পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য দুইটি পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রধানমন্ত্রী হাতে নিয়েছিলেন। যেখানে স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ করার জন্য ১০ বছরের দিক নির্দেশনা ছিলো। লক্ষ অর্জন করার জন্য বিভিন্ন মিশন থাকতে হবে। আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ একটি সুখী, সমৃদ্ধ ও উন্নত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যে অষ্টবার্ষিকী উন্নয়ন পরিকল্পনা করেছেন। জেলা প্রশাসক আরো বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে সামগ্রীক অর্থনৈতিক স্থীতিশীলতা দেশে বিদেশে প্রশংসার দাবী রাখে। ঘূর্নিঝড় ও সাইক্লোন প্রতিরোধে বাংলাদেশ বিশ^ দরবারে রোল মডেল। রির্জাভের দিক থেকে আমরা খুবই শক্তিশালী অবস্থানে আছি।

অর্থনৈতিক উন্নয়নের উদাহরন দিতে গিয়ে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেন, যখন রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কার্যক্রম শুরু হয় তখন শ্রমিকেরা কর্মক্ষেত্রে আসতো পায়ে হেঁটে, কিছুদিন যাওয়ার পরে শ্রমিকেরা সাইকেলে আসা যাওয়া শুরু করে এবং বর্তমানে সেখানে মোটর সাইকেল রাখার জায়গা থাকে না। পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র উৎপাদনে গেলে সবাই গাড়ী নিয়ে আসবে এটাই স্বাভাবিক। এটাই অর্থনৈতিক উন্নয়ন। সন্ধ্যায় কালেক্টরেট চত্ত্বরের মুক্তমঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে জেলার শিল্পীরা অংশগ্রহণ করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
© All rights reserved ©2021  Daily Andoloner Bazar
Theme Customized By Uttoron Host

You cannot copy content of this page