1. admin@andolonerbazar.com : : admin admin
  2. andolonerbazar@gmail.com : AndolonerBazar :

বহুমাতৃক লেখক, গীতিকার, সাহিত্যিক সৈয়দা রাশিদা বারী ২০২৩ সালেই পেলেন ৫টি উপাধি

  • সর্বশেষ আপডেট : বুধবার, ২৪ মে, ২০২৩

 

 

 

 

(পূর্ব প্রকাশের পর)আমি মনে করি তিনি একজন আধ্যাত্মিক জগতের খাটি সাধক। আর তার লেখার ধারা বর্তমান প্রেক্ষাপটে মোড়ানো। কিন্তু কোন রাখ ঢাক নেই। ছাড় দেওয়া নেই। তিনি সুবিধাবাদী, দলকানা, ঘাতক-দালাল, চামচাকে এড়িয়ে যেতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। তবে তার লেখালেখির তুলনা নেই,- এটা তার শত্র“ও স্বীকার করবে। আসলেও তার লেখালেখির মাত্রা ধরা ছোঁয়ার বাইরে। একজন মেয়ে মানুষের পক্ষে এটা বিরল দৃষ্টান্ত। এই বাংলাদেশে কি সামগ্রিক বিশ্বেও এমন কোন নারী লেখক আছে কিনা সেটা সন্দেহের বিষয়। এক জনমে জীবনের এতো স্বল্প সময় পরিসরে, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক অবদানে বিস্তর জায়গায় তিনি ঠিক সাগরের গভীরতর জলধার মতোই পৌঁছে গেছেন। সাহিত্য সাগরসহ সাহিত্যরানী- অন্যান্য উপাধি সম্পন্ন পুরষ্কারগুলো তার জন্যই ঠিক আছে বটে। এটা তার ন্যায্য প্রাপ্তী। এতো ব্যাপক অর্জন করেছেন তিনি, যা অহংকার করারই মতোন কিন্তু এই লেখকের কোন গর্ব অহংকার দেখা যায়না।

উল্লেখ্য যে এই গুনী মানুষটি এ যাবৎ ছোট থেকে মাঝারী তথা বিশাল এবং গুরুত্বপূর্ণ ২শত এর উপর গ্রন্থ রচনা করেছেন। তবে প্রকাশিত গ্রন্থ ১শতটিরও উপরে, বেশকিছু উল্লেখযোগ্য অন্তত ৮০-৯০টি গ্রন্থ প্রকাশের অপেক্ষায়, কাজ চলছে। যা তিনি এক সংঙ্গেই দিতে চান এবং কারণ বর্ণণায় অনেক ব্যাপার আছে বলে জানিয়েছেন। এক হলো- হাড়ির একটা ভাত টিপলে যেমন সবগুলোর অবস্থান বোঝা যায় এবং কম বেশি একই সময় লাগে, এই সময়ের জন্যই। তাছাড়াও বাংলা একাডেমির বইমেলা এখন বিশাল এরিয়া সোহরায়ার্দিনে… ছুটতেই যখন হবে তখন আর ১টা ২টা নিয়ে নয়। তিনি ৪ হাজারেরও বেশি গান লিখেছেন। তবে শুধু সৈয়দা রাশিদা বারীই নয়, এ যাবতকাল বেশী রচনাশীল কোন গীতিকারই জীবদ্দশায় তার নিজের রচিত সব গান প্রকাশ করেন নাই। যারা বিপুল লেখেন তাদের পক্ষে এটা সম্ভব না। লালন, নজরুল, প্রভৃতি গীতিকারের গান, পরবর্তী পুরুষ, ভক্ত উত্তরসূরী সরকারী উদ্যোগ ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রকাশ করেছে, এমনকি এখনও যা অব্যাহত আছে। তাদের অপ্রকাশিত অন্যান্য পান্ডুলিপিও ছিলো। যা পরবর্তীতে প্রকাশ হয়েছে ও হচ্ছে।

সৈয়দা রাশিদা বারী সাহিত্য ও সংস্কৃতির উপরে সংবর্ধনা, সম্মাননা, পুরস্কার, ক্রেস্ট, উত্তরীয়, মেডেল, মানপত্র, শুভেচ্ছা শ্রদ্ধা ও প্রশংসাপত্র প্রভৃতি পেয়েছেন, তার কর্মের স্বীকৃতিতে স্থানীয়, জাতীয় ও আন্তর্জাতিকসহ প্রায় ৮৫টি। তবে উপাধী পেয়েছেন ১৮-২০টি মতো। মাশাল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ, এ জন্য ধন্যবাদ ও অভিনন্দন তাকে। এটাও বাংলাদেশের সাহিত্য সংস্কৃতি ক্ষেত্রের উন্নয়ন উন্নতির এক বৃহৎ- মহামূল্যবান সংযোজন। তার গর্ব যে তিনি চেয়ে এবং ধন্যা দিয়ে কখনোই কোন পুরষ্কার গ্রহণ করেন নাই। তার সৃজনশীল কর্মকান্ডের উপর নজর বিশ্লেষণে যে সংস্থা মূলায়ন করে সম্মাননা দিয়েছে, উপাধি দিয়েছে, সেটাই মাত্র তিনি গ্রহণ করেছেন কৃতজ্ঞ চিত্তে। আর তিনি স্রষ্ঠার সৃষ্টির সকল মানুষকে একই দৃষ্টিতে সমান দেখেন এবং স্নেহ ভালোবাসা, শ্রদ্ধায় ¯œাত করেন। যার প্রমান তার উপাধীগুলোই। এই উপাধীগুলো তিনি সকল শ্রেনীর মানুষের সংস্থান এবং সংগঠন থেকে গ্রহন করেছেন। আসলে তিনি মানুষটি যেমন আলাদা, তেমন চিন্তা, চেতনাও তার ্মহত ও অস¦াভাবিক। এমন বিরল মানুষটির জন্ম: সংস্কৃতির রাজধানী কুষ্টিয়া। তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার ও চলচ্চিত্রের গীতিকার। সম্পাদক-প্রকাশক জাতীয় সচিত্র মাসিক ‘স্বপ্নের দেশ’ ঢাকা। তিনি তার এই ‘স্বপ্নের দেশ’ পত্রিকায় বেশ কিছু দিন থেকে মহান ভাষা আন্দোলনকে ঘিরে কাজ করছেন। যা তিনি ভাষাসৈনিক বা ভাষা লড়াকুদের সৌজন্যে বের করেন। তিনি সার্টিফিকেট বিহিন ও সহযোগি মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়েও কাজ করছেন। প্রকৃতি, নারী, শিশু, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ নিয়েই রিসার্চ এবং লেখালেখি করেন। মূলত: তার কলম চলে, এক প্রান্তর থেকে আরেক প্রান্তরে শেখড়ের সন্ধানে। তিনি-

সাংবাদিকতায়: ১. দৈনিক আজকের সংবাদ, ঢাকা এর বিশেষ প্রতিনিধি; ২. দৈনিক জনপদ, ঢাকা এর সাবেক বিশেষ সংবাদদাতা; ৩. দৈনিক আল আমীন, ঢাকা এর বিভাগীয় সম্পাদক/নারী ও শিশু বিভাগের প্রধান এবং পূর্বে কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি ছিলেন; ৪. মাসিক ডাকপিয়ন (ঢাকা) এর সাবেক চীফ রিপোর্টার, এছাড়াও পূর্বে অন্যান্য দৈনিকে ছিলেন।

সাংগঠনিক ক্ষেত্রে: ১. প্রতিষ্ঠাতা-সাধারণ সম্পাদক: শতাব্দী সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্র (বৃহত্তর কুষ্টিয়া জেলা শাখা)। ২. প্রতিষ্ঠাতা প্রধান/ভূতপূর্ব সাধারণ সম্পাদক: বাংলাদেশ লেখিকা সংঘ (কুষ্টিয়া জেলা শাখা)। ৩. প্রতিষ্ঠাতা-সাধারণ সম্পাদক: আধুনিক সাহিত্য পরিষদ (কুষ্টিয়া, বাংলাদেশ)। ৪. প্রতিষ্ঠাতা-সভাপতি: বাংলাদেশ আধুনিক সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক পরিষদ, ঢাকা, বাংলাদেশ। ৫. প্রতিষ্ঠাতা-সভাপতি: বাংলাদেশ ভাষাসৈনিক প্রজন্ম সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক পরিষদ, ঢাকা, বাংলাদেশ। ৬. প্রতিষ্ঠাতা-সভাপতি: ভাবনায় বাংলাদেশ, ঢাকা, বাংলাদেশ। ৭. প্রতিষ্ঠাতা- নির্বাহী সদস্য: ড. মযহারুল ইসলাম স্মৃতি পরিষদ (ঢাকা)। ৮. সহ-সভাপতি: বাউল তরী শিল্পী গোষ্ঠী, ঢাকা। ৯. উপদেষ্টা: ‘বন্ধন’ কালচারাল ফোরাম, ঢাকা। ১০. উপদেষ্টা: ‘শুদ্ধচিত্র বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন’, ঢাকা। ১১. যুগ্ম সম্পাদক: জয় বাংলা সাংস্কৃতিক পরিষদ, ঢাকা। ১২. সাবেক সহ-সম্পাদক: বাংলাদেশ জাতীয় লেখক ফোরাম, ঢাকা। ১৩. বিভাগীয় সচিব: জাতীয় গীতি কবি পরিষদ, ঢাকা। ১৪. নির্বাহী সদস্য: বাংলাদেশ টেলিভিশন শিল্পী সমিতি, ঢাকা। ১৫. প্রাক্তন নির্বাহী সদস্য: জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা- ঢাকা, কেন্দ্রীয় পরিষদসহ ইত্যাদি।

স্থায়ী সদস্য: ১. বাংলা একাডেমি (ঢাকা); ২. লালন একাডেমী (কুষ্টিয়া); ৩. জেলা শিল্পকলা একাডেমী (কুষ্টিয়া); ৪. বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট  সোসাইটি (কুষ্টিয়া শাখা); ৫. বাংলাদেশ লেখিকা সংঘ (ঢাকা); ৬. ঢাকাস্থ কুষ্টিয়া জেলা সমিতি (ঢাকা); ৭. কুষ্টিয়া পাবলিক লাইব্রেরী; ৮. কুমারখালী পাবলিক লাইব্রেরি; ৯. কবি সংসদ বাংলাদেশ, ঢাকা; ১০. ভারত-বাংলাদেশ সাহিত্য সংস্থা, ঢাকা, ভারত; ১১. কলকাতা-ঢাকা মৈত্রী পরিষদ ঢাকা, কলকাতা; ১২. সার্ক কালচারাল ফোরাম এবং ১৩. বিশ্ববঙ্গ সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্মেলন (ভারত) ইত্যাদি।

সম্মাননা/ পুরস্কার: ১. বাংলাদেশ জাতীয় লেখক ফোরাম (ঢাকা) বেগম রোকেয়া পদক; ২. বাংলাদেশ লেখিকা সংঘর (ঢাকা) সাহিত্য সংবর্ধনা;  ৩. বাংলাদেশ কবিতা সংসদ (পাবনা) বাংলা সাহিত্য পদক; ৪. সুললনা স্বাধীনতা পদক (রাজশাহী); ৫. নোঙর সাহিত্য পুরস্কার  (ঈশ্বরদী); ৬. সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী সাহিত্য পুরষ্কার (সিরাজগঞ্জ); ৭. আরশী নগর বাউল সংঘ (রাজবাড়ী) সাহিত্য পুরস্কার ; ৮. জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা; ৯. শতাব্দী সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্রের সম্মাননা; সাংবাদিকতা এবং সাহিত্যের উপর; ১০. কুষ্টিয়া উন্নয়ন পরিষদ এর স্বর্ণপদক ও নাগরিক সংবর্ধনা; ১১. সাপ্তাহিক বিচিত্র সংবাদ পত্রিকার সাহিত্য সম্মাননা; ১২. কবি বে-নজীর আহমদ; ১৩. জাতীয় মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস রিভিউ সোসাইটি; ১৪. বাউল তরী; এছাড়া ভারতের ১৫. আন্তর্জাতিক আলো আভাষ; ১৬. আন্তর্জাতিক বিশ্ব বঙ্গ সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্মেলন এর আন্তর্জাতিক সাহিত্য পুরষ্কার; ১৭. ‘এবং বাউল’ পত্রিকা; ও ১৮. ‘কুশুমে ফেরা’ সংস্থা হতে, নেতাজি সুবাস স্মৃতি পুরস্কারসহ ভারতেরও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান থেকে ১৪টি সংবর্ধনা ও সাহিত্য পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। সৈয়দা রাশিদা বারী দেশবাসীর কাছে দোয়া প্রার্থী। আমাদের পত্রিকার পক্ষ থেকে অভিনন্দনসহ সাহিত্যের উজ্বল ভবিষ্যত ও সুস্বাস্থ্য দীর্ঘায়ু কামনা করছি।

 

Please Share This Post in Your Social Media

আরো খবর
© All rights reserved ©2021  Daily Andoloner Bazar
Site Customized By NewsTech.Com