1. andolonerbazar@gmail.com : AndolonerBazar :
শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ১০:৪২ পূর্বাহ্ন

রথে চাঁদার টাকা না দেয়ায় দোকান ভাংচুর ও উচ্ছেদ বিচ্ছু বাহিনীর

  • সর্বশেষ আপডেট : শুক্রবার, ১ জুলাই, ২০২২
  • ১১ মোট ভিউ

 

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় রথযাত্রা উৎসবে চাঁদার টাকা না দেয়ায় দোকান ভাংচুর ও উচ্ছেদ বিচ্ছু বাহিনীর, ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কৌশিক আহমেদ ওরফে বিচ্ছুর নামে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী দোকানাদার। অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, মোঃ সাচ্চু ইসলাম (৩০), পিতা আমিরুল ইসলাম, জুগিয়া কদমতলা। তিনি পেশায় একজন ভ্রাম্মমান ব্যবসায়ি। গত ৩০/০৬/২০২২ইং বৃহস্পতিবার কুষ্টিয়া রথযাত্রা মেলায় বাচ্চাদের খেলনার দোকানদেন তিনি। কিছু লাভের আশায় বাটার ফ্লাই মোড় নামক স্থানে দোকান সাঁজিয়ে বসেন তিনি। সেই সময় অজ্ঞাতনামা ৫/৬ জন লোক এসে এখানে যায়গা নিতে হবে বলে ৩০০ (তিনশত) টাকা চাঁদা দিতে হবে। মোঃ সাচ্চু ইসলাম তাদের নাম ঠিকানা জিজ্ঞেস করলে তারা বলেন আমরা ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বিচ্ছুর লোক। তিনি কোন কিছু না বলে তাদের টাকা দিয়ে দেন। তারা টাকা নিয়ে পাশের দোকানে চলে যায়। পরের দিন ০১/০৭/২০২২ইং শুক্রবার সকাল ৮টার সময় কৌশিক ভায়ের লোক পূনরায় চাঁদা নিতে আসেন। দোকানদার সাচ্চু ইসলাম তাদের টাকা দিতে না চাইলে তারা অকথ্য ভাষায় গালি দিতে থাকে। গালি দেয়ার একপর্যায়ে দোকানদার সাচ্চুর দোকান ভাংচুর চালায় এবং সেখান থেকে উচ্ছেদ করেন তারা। নিরুপায় হয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় ভুক্তভোগী দোকানদার একটি অভিযোগ দায়ের করেন। বৃহস্পতিবারের সূত্র অনুযায়ী জানা যায়, শুক্রবার থেকে মেলা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও বৃহস্পতিবার সকল দোকানগুলো রাস্তার সারি ধরে জমজমাট পূর্ন ভাবে সাজিয়েছিলে বিক্রেতারা। কিন্ত এই সুযোগে ইজারার কথা বলে প্রতি দোকান থেকে মোটা টাকা চাঁদা তুলছে বিচ্ছু বাহিনীর লোকজন। বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। তারা বলছে কুষ্টিয়া পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শেখ কৌশিক আহমেদ ওরফে বিচ্ছুর লোকজন প্রতি দোকান থেকে মোটা অংকের এই চাঁদা তুলছে বলে ফুটপা ও অস্থায়ী দোকানদারেরা অভিযোগ জানিয়েছিলেন তাদের কাছে। বিষয়টি নিয়ে জানতে সরেজমিনে হাজির হন দৈনিক সূত্রপাত পত্রিকার টিম। তারা তুলে আনেন আসল সত্যটা। আনিস নামে একজন খেলনা বিক্রেতা বলেন, কাল মেলা শুরু হবে অথচ আজকেই আমার কাছে ইজারার কথা বলে ২৫০ টাকা নিয়েছে। সেই সাথে আমার আশেপাশের দোকানদারদের কাছ থেকেও টাকা নিয়েছে। আমি জিজ্ঞেস করলাম ইজারা কে নিয়েছে তারা বললো আমরা ৮নং কাউন্সিলর বিচ্ছুর লোক, ইজারা ছাড়া কি এমনি এমনি তোমাদের থেকে টাকা নিচ্ছি। ভয় দিয়ে কাল আবার আসবো বলে চলে যান তারা। আরেকজন খই বিক্রেনা জাহিদ বলেল, আমি বিচ্ছু লোকদের আজ (বৃহস্পতিবার) টাকা দিয়েছি। আমি কৌশিক বা বিচ্ছু নামে কাউকে চিনি না। ইজারা নিয়েছে তাই সবাই দিচ্ছে আমিও ৩০০ টাকা দিয়েছি তাদের। কালকে শুক্রবার নাকি বেশি টাকা দিতে হবে। এছাড়াও জিলিপী বিক্রেতা শাহিন, সরবত বিক্রেতা রজব আলী, দাঁ কুড়াল কাঁচি বটি বিক্রেতা সিকান্দার, পান সিগারেট বিক্রেতা রতন প্রামাণিক ও আরেক খেলনা বিক্রেতা জসিম উদ্দিন এরা সবাই এই বিষয়ে মুখ খোলেন। এদের সবার কাছ থেকেই ইজারার কথা বলে মোটা অংকের টাকা নেয়া হয়েছে। আগামীকাল আরও বেশি টাকা নেয়া হবে বলেও জানানো হয়েছে। সুত্রে আরও জানা যায়, মুলত ইজারা দেয়া হয়েছে বড়বাজার ও রাজার হাট এড়িয়ার জন্য। কিন্তু সেই সুবাদেই নাকি এই টাকা তোলা হচ্ছে সরকারী বালিকা বিদ্যালয় পর্যন্ত । এই হিসেবে আলাদা করে কোন ইজারা দেয়া হয়নি বলে জানা পৌর কর্তৃপক্ষ। এতে পৌরসভার কোন নির্দেশনাও নেই বলেও জানান তারা। এই বিষয়ে কুষ্টিয়া পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মো: রবিউল ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি জানান, রথ উৎসব মেলার জন্য কোন প্রকার ইজারা দেয়া হয়নি, যদি কেউ এমন টাকা তুলে থাকে তবে সেটা বেআইনী। এখানে এমন কোন কিছু করার কোন সুযোগ নেই। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এই বিষয়ে কুষ্টিয়া পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিল শেখ কৌশিক আহমেদের সাথে ০১৭১১-৪৪৫৩০৩ নং মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে  প্রতিবেদককে সাড়া দেননি।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
© All rights reserved ©2021  Daily Andoloner Bazar
Theme Customized By Uttoron Host
You cannot copy content of this page