1. andolonerbazar@gmail.com : AndolonerBazar :
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ০৪:১১ পূর্বাহ্ন

সোনা পাচারের নিরাপদ রুট জীবননগর সীমান্ত

  • সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৪৮ মোট ভিউ

 

জীবননগর প্রতিনিধি ॥ সোনা পাচারের নিরাপদ রুট হিসেবে চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার গয়েশপুর, মেদেনীপুর, বেনীপুর ও হরিহরনগর সীমান্তসহ দর্শনা, দামুড়হুদা এবং মহেশপুর উপজেলার বিভিন্ন সীমান্ত পয়েন্ট ব্যবহার করা হ”েছ। দীর্ঘদিন ধরে এলাকার অন্তত ২০টি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট এ রুটগুলো দিয়ে প্রতিদিন ২৫ থেকে ৩০ কেজি স্বর্ণ পার্শ^বর্তী দেশ ভারতে পাচার করছে। এসব স্বর্ণ পাচারকারী শক্তিশালী সিন্ডিকেট প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে নির্বিঘেœ কোটি কোটি টাকার স্বর্ণ প্রতিদিনই নানা কৌশল আর মাধ্যম অবলম্বন করে চোরাইপথে ভারতে পাচার করছে। প্রশাসনের অভিযানের কারণে প্রায়ই দুথএকজন বহনকারী ধরা পড়লেও মূল হোতারা বরাবরই থাকে ধরাছোঁয়ার বাইরে। মূলত মধ্যপ্রাচ্যের দুবাই থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হ”েছ এ সোনা চোরাচালান। এ চক্রের মূল হোতারা ধরা না পড়ায় স্বর্ণ পাচারের ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে। স্বর্ণ পাচারকারী সিন্ডিকেটে রয়েছে রাজনৈতিক দলের সদস্য, জনপ্রতিনিধি এবং সাংবাদিক। বিজিবি ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বিকেলে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মহেশপুর-৫৮ ব্যাটালিয়নের নিমতলা ক্যাম্পের সদস্যরা দর্শনা থেকে জীবননগর আসার পথে আকন্দবাড়ীয়া নামকস্থানে আব্দুস শুকুর (৩৫) নামে এক স্বর্ণ চোরাকারবারীকে ৫১ লাখ টাকা মূল্যের ৫৯ ভরি ওজনের ৬টি স্বর্ণের বারসহ আটক করে। আটককৃত আব্দুস শুকুর বিজিবির কাছে জানান, ভারতে পাচারের জন্য স্বর্ণগুলো সীমান্তে নিয়ে যাচ্ছিলেন। একই দিন যাদবপুর বিওপির টহল দল মহেশপুর উপজেলার গোপালপুর গ্রামের একটি কলাবাগানের মধ্যে থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ৮ কোটি ৪ লাখ টাকা মূল্যের ৯৪৬ ভরি ওজনের ৮৫টি স্বর্ণের বার উদ্ধার করে। এর আগে শনিবার দিনগত রাত ৩টায় ঢাকার কেরাণীগঞ্জের চুলকুটিয়ায় কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের সদস্যরা জীবননগরগামী পূর্বাশা পরিবহন ও রয়েল এক্সপ্রেস বাস দুটি তল্লাশী করে তিন ভারতীয় নাগরিকসহ ১২ জনকে আটক করে। পরে তাদের দখলে থাকা ৫ কোটি টাকা মূল্যের ৬৩৭ ভরি স্বর্ণ জব্দ করে কাস্টমস গোয়েন্দারা। আটককৃতরা জানান, সোনার বারগুলো ভারতে পাচার করার উদ্দেশ্যে জীবননগর সীমান্তে নেয়া হচ্ছিলো। আসামিরা এ কাজে সরাসরি জড়িত এবং সোনা চোরাকারবারী চক্রের সদস্য। তার আগে ২৫ সেপ্টেম্বর দামুড়হুদা উপজেলার নাস্তিপুর গ্রাম থেকে ৯ কেজি ৮৬০  গ্রাম ওজনের ৫৮টি স্বর্ণের বারসহ রকিবুল নামের এক ব্যক্তিকে আটক করে বিজিবি। একই দিন রাতে চুয়াডাঙ্গা শহরের বিএডিসি মোড়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে জুয়েল ও আরিফ নামের দুই স্বর্ণ চোরাকারবারীসহ ৫০ ভরি ওজনের ৫টি স্বর্ণের বার আটক করে। ২৬ সেপ্টেম্বর জীবননগর উপজেলার চ্যাংখালী সড়কের মোল্লা ব্রিকসের সামনে থেকে গোয়ালপাড়া  গ্রামের তাজুল ইসলামকে ৪টি স্বর্ণের বারসহ আটক করে বিজিবি। ২৯ সেপ্টেম্বর মহেশপুর মাটিলা ক্যাম্পের বিজিবি সদস্যরা অভিযান চালিয়ে শওকত আলী নামের এক ব্যক্তিকে ৪ কেজি ৬৬৫  গ্রাম ওজনের ৪০টি স্বর্ণের বারসহ আটক করে। এসব আটকের ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা হয়েছে। একাধিক সূত্র জানায়, দুবাই, সৌদি আরব, কুয়েত, মালয়েশিয়া ও সিঙ্গাপুর থেকে চোরাচালানের মাধ্যমে নিয়ে আসা স্বর্ণের বার বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের লোকজন কমিশনের বিনিময়ে বিমানবন্দর পার করে দেয়। এরপর ১০ তোলা ওজনের  প্রতিটি স্বর্ণের বারের জন্য দুই হাজার টাকা কমিশন নিয়ে জীবননগর উপজেলার স্বর্ণ চোরাচালান সিন্ডিকেটের সদস্যরা ঢাকা থেকে বাস ও ট্রেনযোগে জীবননগরে নিয়ে আসে। পরে সময়-সুযোগ বুঝে সোনা চোরাকারবারিরা স্বর্ণের বারগুলো সীমান্ত পেরিয়ে ভারতীয় সিন্ডিকেটের হাতে তুলে দেয়। অভিযোগ রয়েছে, ইতোমধ্যে এ অবৈধ ব্যবসা করে অনেকেই অল্প দিনেই কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
© All rights reserved ©2021  Daily Andoloner Bazar
Theme Customized By Uttoron Host

You cannot copy content of this page